মঙ্গলবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩, ১১:৫৪ অপরাহ্ন

বায়োস্কোপ-শিস খন্দকার

বায়োস্কোপ-শিস খন্দকার

বায়োস্কোপ
শিস খন্দকার

বন্ধ ছিলো; জানালাটা খুলি—
হেঁটে যাচ্ছে একটি মানুষ, সঙ্গে দুইটি কুলি।
কার্নিশে ঝুলছে একা একটি কিম্ভুতকিমাকার বাদর
খামছে ধরে একটি শীতকাল আর ষোলকোটি চাদর।
পথের ধারে হেলানো জারুল গাছে একটি দোলনা নিশ্চুপ ঝুলছে
একটি শিশু বিস্ময়ে চেয়ে আছে— দোলনাটি কেন একা দুলছে?
বুকের ভেতর বহুবিধ রঙ ছিলো, উল্টে গেছে রঙের কৌটা
নাকফুলের গোপন ব্যথাও নিভৃতে একা সয়ে যাচ্ছে বৌটা।
ভালোবাসার কাঙাল— আহা, করুণ উদম বুক!
খোলা থাকুক—জানালাটা খোলাই থাকুক।
কে তুমি—বোধের অধিক ব্যথা হয়ে রও?
হৃদয়ঘটিত অনুচ্ছেদে অকারণ বিরামচিহ্ন হও?
অর্থের পাশবালিশ জড়িয়েও জ্ঞানী-গুণী-চাষা
দেখো, করছে প্রলাপ— ভালোবাসা-ভালোবাসা!
কি শালা এক অদ্ভুত পৃথিবী—
হাতকে খাওয়াচ্ছে মুখ, ক্যামেরাকে তুলছে ছবি
পা-কে পরছে জুতো, জুতোয় হাঁটছে রাস্তা
মানুষকে করছে পাপ— লিখছে বসে ফেরেশতা
কলমকে লিখছে বর্ণ, খুনকে করছে তরবারি
সুশীলদের বিচার করছে চোরেদের দরবারী
প্রিয়ার শরীরে বাড়ছে প্রেম— হৃদয়ে বাড়ছে কলঙ্ক
মানবিকবিদ্যা বেঁচে খেয়ে কষছে দেখো টাকার অঙ্ক
হারাচ্ছে বিশ্বাস মানুষ, বাড়াচ্ছে বিশ্বাস ভূত—
সত্যিই পৃথিবীটা অদ্ভুত—বড় অদ্ভুত!
হা হা হা…! হয়ে যাক তরজমা—
রক্তে ভেজা কেনো নাবালিকার পায়জামা?
তর্জনি তুলতে বারণ? সেলাইবদ্ধ কেনো মুখের কথা?
স্বাধীনতার অর্থ কী? চুপ থাকা মানেই স্বাধীনতা?

শেয়ার করুন ..

Comments are closed.




© All rights reserved © পাতা প্রকাশ
Developed by : IT incharge