সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ০৫:১৪ পূর্বাহ্ন

নবমেঘদূত-শান্তা সরকার

নবমেঘদূত-শান্তা সরকার

নবমেঘদূত
শান্তা সরকার

মেঘূদূত স্রেফ কালিদাসের
আর কারো কি নয়—?
কালি কলম টরেটক্কায়
মোবাইল আর এস এম এসে
অনেক কথাই হয়
কিন্তু যাদের মনের মাঝে
অন্য আলো জ্বলে
সেই আলো কি ইন্টারনেটে
মেলে?
মেঘের খাতায় বিদ্যুৎ অক্ষর
আজও লিখে রাখে বিরহের স্বাক্ষর
দৈব কারনে আমিই সাক্ষী যদি
জানাই তাহলে বিরহের গতিবিধি।

ঘটনার শুরু শিলং পাহাড়ে-‘
‘শেষের কবিতা ‘ যায়নি তো তারা পড়ে
তবু ও ঘটলো দৈবিক দেখাশোনা,
ছিল সে যখন পাশের পাড়াতে
তখন হয়নি চেনা,
চাকরি সূত্রে দূর শহরটিতে এসে
চেনাজানা থেকে ভালবাসা হল শেষে।
আমি ছোটো অতি বুঝি না তখনও
সহজ পাঠের মানে
তবু ও জেনেছি যেভাবে মানুষ
ইতিহাস পড়ে জানে।

জেনেছি দৈব মেলাতে যেমন জানে
দুর্ঘটনাও ঘটায় হ্যাঁচকা টানে,
চাকরি সূত্রে বদলির চিঠি এল
যক্ষ প্রিয়াটি বিরহ সফরে
কলকাতা ফিরে এল।

প্রবাসী যক্ষ নীল খামে চিঠি দেয়
প্রতিদিন–রোজ—-এক সপ্তাহ পরে
শেষে অপেক্ষা পুরো একমাস ধরে
ততদিনে এসে গিয়েছে শ্রাবণ নতুন মায়ার সাজে
যক্ষের চিঠি তখন মেঘের ভাঁজে।

প্রমোশন পেয়ে প্রিয় হল অফিসার
মেঘ দেখার সময় কোথায় আর?
অভিমানে প্রিয়া চিঠি দেয় যক্ষকে
এক মাসে মোটে একখানা চিঠি–,
ধূসর পাতায় উড়ে আসে উত্তর
কালি ও কলমে শুধুই কেন যে খোঁজা
মেঘের ভাষায় যে চিঠি পাঠাই
সেটাও একটু বোঝো।
ড্রাফটম্যানশিপ পড়েছো সেটা তো।জানি
“মেঘদূত” পড়া আছে?
না পড়া থাকলে পড়ে নিও তাড়াতাড়ি
নইলে করবো চিরজীবনের আড়ি।
তাড়াতাড়ি প্রিয়া “মেঘদূত” কিনে আনে
ধীরে ধীরে নেশা গভীরে সঞ্চারিত
বিরহ মধুর হয়ে ওঠে সেইমত।

ওদিকে পাহাড়ে তখন বাদল নামে
পিতৃআদেশ আসে গম্ভীর খামে
লন্ডন বাসী পিতার কন্যা
সৌন্দর্যের ডালি
এমন পাত্রী মিলবে না আর
কলকাতা এসো কালই।

আসা আর যাওয়া
মাঝখানে শুধু প্রজাপতি ওড়াউড়ি
প্রিয়াটি জানে না মেঘের আড়ালে
কখন কাটলো ঘুড়ি।

মেঘলা চিঠির দীর্ঘ মিছিল শেষে
উত্তর এলো সজল হাওয়ায় ভেসে
এখন থির-বিজুরি আমার ঘরে
তবু-
তুমিই আমার প্রথম শ্রাবণ
ঘন জলভরা মেঘ
মেঘে মেঘেই আমাদের কথা হোক।

কোনোদিন আর লিখলো না চিঠি
পড়লো না “মেঘদূত”
অফিসের কাজে হতেই থাকলো
ছোটোখাটো নানা খুঁত
বাবা -ভাই-বোন ভুলে গেল সব
ভুলে গেল সাজগোজ
ভুললো না শুধু একটি কথাই
শ্রাবণের মেঘে বিরহ চিঠির খোঁজ।
`গল্পের ছেঁড়াপাতা’ কাব্যসংকলন থেকে।

শেয়ার করুন ..

Comments are closed.




© All rights reserved © পাতা প্রকাশ
Developed by : IT incharge