মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:১৭ পূর্বাহ্ন

তৈমুর রহমান এর ৫টি কবিতা

তৈমুর রহমান এর ৫টি কবিতা

তৈমুর রহমান এর ৫টি কবিতা

১. শয়তানের সফলতা
শয়তান এখন বেশ আরামে
শিষ্যে করে কাজ;
বিশ্বব্যাপী শিষ্যরা সব
বড়ই ধুরন্দাজ।

ঘরে বাইরে সবখানেতে
শয়তানী চাল চালে;
বোকা লোকে ধোঁকা খেয়ে
ভাসে নয়ন জলে।

নিরীহ যত মানুষ সকল
বড়ই অসহায়;
চতুর্পাশেই খানাখন্দ
কেমনে পা বাড়ায়?

মিষ্টি কথায় মন ভোলাতে
শিষ্যরা বেশ পাকা;
হৃদয় তাদের শক্ত কঠিন
পাথর দিয়ে ঢাকা।

শয়তান ভাবে “আমি কী ?
শিষ্য জগৎসেরা;
শ্রম আমার সার্থক আজ
আনন্দে আত্মহারা।”

২. নদী
নদীরে, ও নদী
তুই জানিস কত খেলা?
এ কূল ভেঙে ও কূল গড়িস
তুই যে সারাবেলা।

কারো মুখে হাসি ফোটাস
তারে ভালোবেসে;
কারো অাবার সব কেড়ে নিস
কেন বিনা দোষে?

তোরতো এখন ভরা যৌবন
উথাল পাথাল ঢেউ;
ঢেউ দিয়ে তুই ভাঙলি বুক
দেখার নাইতো কেউ।

ভাঙা গড়ার নিঠুর খেলা
খেলবি কত দিন?
তোর কারণে দুচোখ আমার
হয়েছে স্বপ্নহীন।

৩. অধরা সুখ
সুখ,
আমি খুঁজছি তোমায়
ডাস্টবিনে শুয়ে শুয়ে;
যখন মা অবৈধ ফসল
ফেলে যায় এইখানে
মশা আর কুকুরের খাদ্য হিসেবে।
খুঁজছি তোমায় তখন থেকেই।

আমি খুঁজছি তোমায়
দোলনায় শুয়ে শুয়ে
যখন মা দেহ সৌষ্ঠব ধরে রাখতে
দুগ্ধপান থেকে বঞ্চিত করে আমায়
রেখে এইখানে।

আমি খুঁজছি তোমায়
গৃহবন্দী হয়ে ছেঁচকির ছ্যাঁকা খেয়ে
যখন গৃহকর্তা কিংবা গিন্নীর
অন্যায় আবদার থেকে
নিজেকে দূরে রাখি।
খুঁজছি তোমায় তখন থেকেই।

আমি খুঁজছি তোমায়
বৃদ্ধাশ্রমের জানালায় দাঁড়িয়ে
যখন সভ্যতার সন্তানেরা
নির্ঝঞ্ঝাট জীবনের প্রত্যাশায়
রাখে আমায় এইখানে।

সুখ,
তবে কি তুমি রবে অধরা
অনন্তকাল?

৪. মুক্তি দাও
করোনা আর বন্যা যেন
চলছে সমানতালে;
দুর্যোগ আর দুর্ভোগে মানুষ
ভাসছে নয়ন জলে।

মানুষ আজ বড় নিরুপায়
দুঃখ চারিপাশে;
সুখ সাগরটা কোন সুদূরে
খুঁজে দীর্ঘশ্বাসে।

আলো যেন আজ ম্রিয়মাণ
কালোয় ঢেকেছে বিশ্ব;
সংকটকালে অনেক মানুষ
হয়েছে বড়ই নিঃস্ব।

সৃষ্টিকর্তার দয়ার পানে
আমরা চেয়ে রই;
পাপী, তাপী বান্দা সকল
খাঁটি মানুষ নই।

বিপদ থেকে মুক্তি পেতে
নতজানু সবে;
হে দয়াময়, দয়ার সাগর
মুক্তি দাও ভবে।

৫. থলের বিড়াল
থলের ভেতর বিড়াল কি আর
চুপটি করে থাকে?
বেশি খাওয়ার লোভেইতো সে
বেরোয় ফাঁকে ফাঁকে।

হায়রে বিড়াল তুই কি জানিস
বাপের আছে বাপ;
একদিন খাবি,দুইদিন খাবি
লোভেই হবে পাপ।

দুধ, কলায় খুব আদরে
পুষলো এতোদিন;
সাপ হয়ে মারলি ছোবল
বিষে কর্তা লীন।

দেশটা কি তোর নয় আপন
সম্মান করলি হানী;
করোনা কালেও ছলচাতুরী
করলিযে বেইমানী।

দেশের ভেতর কত্ত বিড়াল
সম্পদ খায় লুটি;
খেয়ে দেয়ে তারা মোটাতাজা
শক্ত তাদের খুঁটি।

সোনার দেশ গড়তে চাইলে
বিড়াল রাখুন বনে;
বনবাসেই থাকুক তারা
অন্যায়ের কারণে।

শেয়ার করুন ..

Comments are closed.




© All rights reserved © পাতা প্রকাশ
Developed by : IT incharge