মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৪১ পূর্বাহ্ন

চিকিৎসা # গরমে, শিশুর যত্ন-ডাঃ মোঃ ফেরদৌস রহমান

চিকিৎসা # গরমে, শিশুর যত্ন-ডাঃ মোঃ ফেরদৌস রহমান

রিপনের বয়স ৭। গতকাল থেকে সে অসুস্থ্য। বমি, পেটে ব্যথা,জ্বর। রিপনের বাবা দ্রুত তাকে শিশু চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। ডাক্তার সাহেব সবশুনে ও দেখে বলেন।আপনার শিশুর জন্ডিস হয়েছে। গরমের এ সময় রিপনের মতো ছোট শিশুরা সবচেয়ে বেশী ভূগছে, রোগব্যাধিতে।স্কুলে যাওয়ার সময় যদিও রোদ তাপ কম দেয় কিন্তু স্কুল যখন ছুটি হয়, তখন মোটামুটি গরমে জান ওষ্ঠাগত।শরীর থেকে প্রচুর ঘাম বের হয়ে যায়। ঘাম বের হবার সময় শরীর থেকে লবণ বের করে আনে।ফলে, ঘামের কারণে শুধু পানি খেলে হবে না। খেতে হবে ওরস্যালাইন। যদি শিশু বেশীক্ষণ রোদে থাকে তবে অনেক সময় অজ্ঞানও হয়ে যেতে পারে। এর জন্য প্রয়োজন ছাতা ব্যবহারে উৎসাহিত করা। পানির বোতল সাথে রাখা। রোদে কম যাওয়া। গরমে ব্যাকটেরিয়া দ্রুত বংশবিস্তার করে এজন্য স্কুলের গেটে বসা আমড়া, চানাচুর, শরবত, ফুচকা না খাওয়া। এসব খেলে ডায়রিয়া, জন্ডিসে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা থাকে। সবচেয়ে ভালো হয়, বাড়ীতে তৈরী নাস্তা সঙ্গে নিয়ে গেলে। স্কুলের শিক্ষকদের উচিত এসময় এ্যাসেমবেলি না করানো। এসময় হিট স্ট্রক হতে পারে। যদি শরীরের তাপমাত্রা ১০৫ ডিগ্রী হয় তবে তাকে হাইপার থারমিয়া বলে।গরমে হঠাত করে অজ্ঞান হয়ে গেলে, শিশুকে দ্রুত ছায়া আছে এমন জায়গায় নিয়ে যান। শরীরের কাপড় খুলে, পাখা দিয়ে বাতাস করুন এবং ঠান্ডা পানিদ্বারা শরীর মুছিয়ে দিন।তারপর পা দুটো একটু উপরে তুলে ধরুন। পানি দ্বারা শরীর মুছে দিতে হবে। যদি শিশুর জ্ঞান থাকে এবং খেতে পারে তবে চামুচে অথবা গ্লাসে করে ঠান্ডা পানি খাওয়াতে হবে।তারপর দ্রুত নিকটস্থ্য স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিতে হবে।

ডাঃ মোঃ ফেরদৌস রহমাম : সহযোগী অধ্যাপক (শিশু বিভাগ), প্রাইম মেডিকেল কলেজ, হাসপাতাল, রংপুর।

শেয়ার করুন ..

Comments are closed.




© All rights reserved © পাতা প্রকাশ
Developed by : IT incharge