মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৫৪ পূর্বাহ্ন

কবিতার অলঙ্কার প্রসঙ্গে সর্বদা সজাগ থাকতে হবে-নজরুল মৃধা

কবিতার অলঙ্কার প্রসঙ্গে সর্বদা সজাগ থাকতে হবে-নজরুল মৃধা

কবিতার অলঙ্কার প্রসঙ্গে সর্বদা সজাগ থাকতে হবে-নজরুল মৃধা

পাঠকনন্দিত কবি তিনি। তার অজস্র কবিতা সাহিত্যিকদের আজ মনে ও মুখে-মুখে। আজ জনপ্রিয় কবি নজরুল মৃধার ৬১ তম জন্মদনি। ১৩৬৬ সনের ২৯ ভাদ্র রংপুর নগরীর শাহী পাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি। শারিরিক অসুস্থতার কারনে স্বল্প আকারে সাক্ষাৎকার দেন তিনি। প্রকাশিত হলো সেই কথোপকথনের নির্বাচিত অংশ। পাতা প্রকাশ এর পক্ষে সাক্ষাৎকার নিয়েছেন কবি জুবায়ের আলম জাহাজী

নজরুল মৃধার সাথে জুবায়ের আলম জাহাজী

পাতা প্রকাশ : শুরুতেই জন্মদিনের অফুরান শুভেচ্ছা ভাইয়া।
নজরুল মৃধাঃ ধন্যবাদ তোমাকে।

পাতা প্রকাশ : ছোটবেলা থেকে আপনার স্বপ্ন কি ছিল?
নজরুল মৃধাঃ পড়াশোনার পাশাপাশি আমার প্রবল ঝোঁক ছিল নাটকের প্রতি। নাট্য শিল্পি হবার স্বপ্ন ছিল, কিন্তু পরিবেশ-পরিস্থিতির কারনে হয়ে গেলাম কবি, লেখক ও সাংবাদিক। (একটু হাসলেন)

পাতা প্রকাশ : তাহলে সাহিত্যের বেড়াজালে কিভাবে নিজেকে জড়ালেন?
নজরুল মৃধাঃ দ্যাখো, ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত আমি নাটকের সাথে জড়িত ছিলাম। অতঃপর ৮০-এর দশকে
প্রায়াত ছান্দসিক কবি নূরুল ইসলাম কাব্যবিনোদের হাত ধরে এই জগতে আমার প্রবেশ।

পাতা প্রকাশ : আপনার সাংবাদিকতার শুরুটা জানতে চাই?
নজরুল মৃধাঃ ৯০ দশকের প্রথমদিক থেকে “দৈনিক প্রভাত” পত্রিকার মাধ্যমে আমি সাংবাদিকতাশুরু করি।

পাতা প্রকাশ : রংপুরের অন্যতম সংগঠন ছান্দসিক সাহিত্য সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীতে আপনার পদার্পণ কবে?
নজরুল মৃধাঃ ১৯৮৭ সালে এই সংগঠনে আমি সদস্য হিসেবে যোগদান করি। এরপর যোগ্যতাবলে পর্যায়ক্রমে সাধারণ সম্পাদক, সভাপতি ও সংগঠনের বর্তমান উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি।

পাতা প্রকাশ : আপনার প্রথম কাব্যগ্রন্থ কোনটি?
নজরুল মৃধাঃ আমার প্রথম কাব্যগ্রন্থর নাম “মধ্যরাতের সূর্য্য” যা ২০০০ সালে প্রকাশিত হয়। এ ছাড়া ২০০৪ সালে একক কবিতার এ্যালবাম “আমি তো সেই আমি” প্রকাশিত হয়েছে। এই এ্যালবামটি যে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করবে তা কল্পনাও করিনি। এটা আমার কাছে ছিল স্বপ্নের মতো।

পাতা প্রকাশ : আগামীতে প্রকাশের অপেক্ষায় কি রয়েছে?
নজরুল মৃধাঃ আমার বেশকটি পান্ডুলিপি প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে। যেমন কিশোরদের নিয়ে লেখা “কল্পলোকে অল্প” “প্রকাশিত উপ-সম্পাদকীয় নিয়ে সম্পাদকীয়” কবিতাগ্রন্থ “আমার কবিতাটি ছিঁড়ে ফেলা উচিত” এ ছাড়াও “রক্তে আঁকা একাত্তুর” গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে।

পাতা প্রকাশ : রংপুরের বর্তমান সাহিত্যাঙ্গনের মান নিয়ে আপনার মন্তব্য?
নজরুল মৃধাঃ ৩ দশক আগে সাহিত্য ও সাংস্কৃতি অঙ্গনে যে পরিমান আন্তরিকতা ছিল এখন আর তা নেই। সাহিত্যিকদের অধিকাংশ এখন পরনিন্দা চর্চায় ব্যস্ত থাকেন। এ ছাড়া অল্প কিছু টাকা হলে বই ছাপানো যায়। কোন ভাবে একটি বই প্রকাশ করতে পারলেই সে হয়ে ওঠে মস্ত বড় কবি। অন্যকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য ভাবতে শুরু করে। সংগঠন গুলোতে পদ ও পদবির দ্বন্দ্বও প্রকৃত সাহিত্য চর্চার অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর এ সব কারনে দিন-দিন সাহিত্যমান কমে যাচ্ছে। তাই বিগত ক’বছর থেকে সাহিত্যাঙ্গন থেকে দূরে রয়েছি।

পাতা প্রকাশ : অনেকটা পথ হেঁটেছেন, এবার আপনার প্রাপ্তি সম্পর্কে জানতে চাই?
নজরুল মৃধাঃ প্রাপ্তিতে শুরু অর্থনৈতিকভাবে আমি সফল নই। ২০১৮ সালে রংপুর স্বাধীনতা বই মেলায় কবি ও লেখক হিসেবে সম্মাননা পেয়েছি এবং একই সালে জাতীয় দৈনিক কালের কণ্ঠ শুভ সংঘের গুণিজন সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আমাকে সম্মাননা ও ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়। এ ছাড়াও নাগরিক নাট্য গোষ্ঠীর সাহিত্য পদক, সাহিত্যে ফিরে দেখা সাহিত্য পত্র পদক, কালি কলম সাহিত্য পদক, ভালোবাসার কবি হিসেবে প্রিয়জন সাহিত্য পদক, কাব্যচন্দ্রিকা সাহিত্য পদক পেয়েছি। আর সাংবাদিকতায় পিআইবি’র চাইল্ড পোজ এ্যাওয়ার্ড গীতাঞ্জলী গীতি সংসদ পদক, দৈনিক ডেসটিনির স্মারক পদক, রংপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সম্মাননা স্মারক এবং কানাডিয়ান অর্থায়নে প্রতিষ্ঠিত নিউজ নেটওয়ার্ক থেকে একাধিকবার প্রতিবেদন লিখে পুরস্কৃত হয়েছি।

পাতা প্রকাশ : আপনার বর্তমান কর্মস্থল?
নজরুল মৃধাঃ বর্তমান ঢাকা থেকে প্রকাশিত জাতীয় দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন ও রংপুর থেকে প্রকাশিত দৈনিক যুগের আলো পত্রিকায় সাংবাদিকতা করছি।

পাতা প্রকাশ : এবার পরিবার পরিচিতি প্রসঙ্গে জানতে চাই?
নজরুল মৃধাঃ ১৯৮৮ সালে আমি মনিরা বেগম জিনার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই। আমার এক ছেলে এক মেয়ে। মেয়ে মাহফুজা শারমিন রিতু কারমাইকেল কলেজ থেকে স্নাকোত্তর শেষ করেছে। সে এখন বিবাহিতা আর পুত্র মাহমুদুল করিম জিতু বিবিএ পাস করেছে।

পাতা প্রকাশ : আপনার মতে কবির স্বাধীনতা কি?
নজরুল মৃধাঃ শব্দ নিয়ে খেলা করা।

পাতা প্রকাশ : তরুণ কবিদের লেখার মানোন্নয়নে আপনি কি দিক নির্দেশনা দিবেন?
নজরুল মৃধাঃ কবিতার অলঙ্কার প্রসঙ্গে সর্বদা সজাগ থাকতে হবে। ছন্দ ও উপমার যথাযথ প্রয়োগ করতে হবে। জীবনানন্দ দাসের কবিতা এত বছর পরও যেমন আমরা অধ্যায়ন করছি ঠিক তেমনি এমন কবিতা লিখবেন যা বেশি নয় অন্তত আগামী ৫০ বছর পর্যন্ত যেন টিকে থাকে। তাই এ ক্ষেত্রে শব্দ চয়নের ব্যাপারে সচেতন হতে হবে এবং বেশি বেশি পড়তে হবে। সেই সাথে নিরস্তর সাধনা খুবই জরুরী।

পাতা প্রকাশ : সর্বশেষ প্রশ্ন: কবি না হলে আপনি কি হতেন?
নজরুল মৃধাঃ ভবঘুরে হতাম।

পাতা প্রকাশ : আপনার মূল্যবান সময় দেবার জন্য ধন্যবাদ।
নজরুল মৃধাঃ তোমাকেও ধন্যবাদ।

শেয়ার করুন ..

Comments are closed.




© All rights reserved © পাতা প্রকাশ
Developed by : IT incharge