বৃহস্পতিবার, ২০ Jun ২০২৪, ১০:৩৬ অপরাহ্ন

আমি একটি মানচিত্র নকশার চেষ্টা করছি।।অনুবাদক : রেজাউল ইসলাম হাসু

আমি একটি মানচিত্র নকশার চেষ্টা করছি।।অনুবাদক : রেজাউল ইসলাম হাসু

আমি একটি মানচিত্র নকশার চেষ্টা করছি
অনুবাদক : রেজাউল ইসলাম হাসু

কবি আমিনে আবু কেরেচ, যিনি ১৩ বছর বয়সেই বেতজামেন পুরস্কার ২০১৭ অর্জন করেন ‘ল্যামেন্ট ফর সিরিয়া’ অর্থাৎ ‘সিরিয়ার জন্য বিলাপ’ কবিতাটি রচনা করে। তিনি এই কবিতাটি রচনা করেন কেবল এক বছরের মধ্যে ইংরেজি বলতে এবং লিখতে শেখার পর। ২০০৪ সালে সিরিয়ার দামাসিয়াস শহরে জন্মগ্রহণ করেন। সিরিয়ায় ২০১১ সালে গৃহযুদ্ধ শুরু হলে তার পরিবার মিশরে পালিয়ে যায়। চার বছর পর, পরিবারটি শরণার্থী হয়ে ইংল্যান্ডে চলে আসে এবং অক্সফোর্ডে স্থায়ী হয়। অক্সফোর্ড স্পায়ার্স শহরের পূর্বে একটি বহুসংস্কৃতি একাডেমি অবস্থিত, যেখানে ৩০ টিরও বেশি ভাষায় কথা বলা শেখানো হতো। তিনি ইরাকি কবি আদনান আল-সাইয়গের নেতৃত্বে সেখানকার একটি কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন। এখানেই স্কটিশ লেখক কেট ক্ল্যাঞ্চির সাথে তার সাক্ষাৎ হয়। তিনি তার কবিতায় সমসাময়িক ইস্যুও পাশাপাশি নতুন রিডেল যোগ করেছেন বলে বিশ্লেকদের ধারণা। তিনি সবসময় জগাখিচুড়ি, যুদ্ধ, ধ্বংসযজ্ঞ এবং দুর্দশা মুক্ত একটি শান্তি ও সমতাময় পৃথিবীর স্বপ্ন দেখেন।

সিরিয়ার জন্য বিলাপ

সিরিয়ান ঘুঘু আমার মাথার উপরে রূঢ়,
তাদের ডাক আমার চোখে চিৎকার করে।

আমি একটি মানচিত্র নকশার চেষ্টা করছি

যে আমার কবিতার সঙ্গে যাবে
এবং আমি যখন ভাববো তার পথে দেয়াল হবে না,
যেখানে যোদ্ধারা আমার মুখের উপর দিয়ে হাঁটবে না।

আমি একটি ভূখণ্ড নকশার চেষ্টা করছি

আমি যদি কবি হয়ে থাকি
তবে সে আমার শব্দসম্পদ হবে,
এবং আমি যদি করুণ কান্নায় ফেটে পড়ি
তবে সে সহনশীল হবে।

আমি একটি দেশ নকশার চেষ্টা করছি

প্রেম, শান্তি, সমাহার এবং সার্থকতার দেশ,
জগাখিচুড়ি, যুদ্ধ, ধ্বংসযজ্ঞ এবং দুর্দশা থেকে মুক্ত

আমি একটি পৃথিবী নকশার চেষ্টা করছি

*
ও সিরিয়া, আমার ভালবাসা
আমি তোমার কান্না শুনতে পাচ্ছি!

কবুতরের কান্নায়
তোমার চিৎকার শুনেছি!

তোমার ভূমি এবং করুণাময় মাটি
আর জুঁই ফুলের সুবাস ছেড়ে চলে এসেছি।

তোমার ডানার মতো ভেঙে গেছে
আমারও ডানা…

*
আমি সিরিয়া থেকে এসেছি
এমন এক দেশ থেকে এসেছি
যেখানে লোকেরা রুটির টুকরোকেও পদদলিত হতে দেয় না।

এমন এক দেশ থেকে এসেছি
যেখানে কোনোদিন মায়েরা তার সন্তানদের
একটি পিঁপড়ের উপর পায়ের পাতা পড়তে দেয় না।

এমন এক দেশ থেকে এসেছি
যেখানে কোনও কিশোর শ্রদ্ধার আবরণে
বড় ভাইয়ের কাছ থেকে নিজের সিগারেট লুকিয়ে রাখে।

এমন এক দেশ থেকে এসেছি
যেখানে প্রত্যুষে মাতামহীরা জুঁইগাছে জল ঢালেন
একটু সুবাসের জন্য।

প্রতিবেশীদের কফি থেকে এসেছি
আমার ভেতর থেকে এসেছি
শোভাকাঙ্খী থেকে এসেছি
বোনের খুশি থেকে এসেছি

এসেছি এমন এক দেশ থেকেÑযা অসহ্যকর,

যে স্বস্তির জন্য অপেক্ষা করতো অতীতে
এবং এখনও অপেক্ষমান।

*

কেউ আমাকে শেখাবে
কীভাবে একটি দেশ তৈরি করতে হয়?

যদি আপনি পারেন,
আপনাকে ধন্যবাদ
ধন্যবাদ…

পোষা চড়ুই থেকে,
সিরিয়ার আপেল গাছ থেকে
এবং আপনার বিশ্বস্ততা থেকে

কেউ আমাকে শেখাবে
কীভাবে একটি দেশ তৈরি করতে হয়?

শেয়ার করুন ..

Comments are closed.




© All rights reserved © পাতা প্রকাশ
Developed by : IT incharge